মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

ভূমি বিষয়ক তথ্য

খতিয়ান কী ? মৌজা ভিত্তিক এক বা একাদিক ভূমি মালিকের ভূ-সম্পত্তির বিবরন সহযে ভূমি রেকর্ড জরিপকালে প্রস্তুত করা হয় তাকে খতিয়ান বলে। সি,এস রেকর্ডকী ? সি,এস হল ক্যাডাস্টাল সার্ভে। আমাদের দেশে জেলা ভিত্তিক প্রথম যেনক্সা ও ভূমি রেকর্ড প্রস্তুত করা হয় তাকে সি,এস রেকর্ড বলা হয়। এস,এখতিয়ান কী ? সরকার কর্তৃক ১৯৫০ সনে জমিদারি অধিগ্রহন ও প্রজাস্বত্ব আইনজারি করার পর যে খতিয়ান প্রস্তুত করা হয় তাকে এস,এ খতিয়ান বলা হয়। নামজারীকী ? উত্তরাধিকার বা ক্রয় সূত্রে বা অন্য কোন প্রক্রিয়ায় কোন জমিতে কেউনতুন মালিক হলে তার নাম খতিয়ানভূক্ত করার প্রক্রিয়াকে নামজারী বলে। জমাখারিজ কী ? জমা খারিজ অর্থ যৌথ জমা বিভক্ত করে আলাদা করে নতুন খতিয়ানসৃষ্টি করা। প্রজার কোন জোতের কোন জমি হস্তান্তর বা বন্টনের কারনে মূলখতিয়ান থেকে কিছু জমি নিয়ে নুতন জোত বা খতিয়ান খোলাকে জমা খারিজ বলা হয়।পর্চা কী ? ভূমি জরিপকালে প্রস্তুতকৃত খসরা খতিয়ান যে অনুলিপি তসদিক বাসত্যায়নের পূর্বে ভূমি মালিকের নিকট বিলি করা হয় তাকে মাঠ পর্চা বলে।রাজস্ব অফিসার কর্তৃক পর্চা সত্যায়িত বা তসদিক হওয়ার পর আপত্তি এবং আপিলশোনানির শেষে খতিয়ান চুরান্তভাবে প্রকাশিত হওয়ার পর ইহার অনুলিপিকে পর্চাবলা হয়। তফসিল কী ? তফসিল অর্থ জমির পরিচিতিমূলক বিস্তারিত বিবরন। কোন জমিরপরিচয় প্রদানের জন্য সংশ্লিষ্ট মৌজার নাম, খতিয়ান নং, দাগ নং, জমিরচৌহদ্দি, জমির পরিমান ইত্যাদি তথ্য সমৃদ্ধ বিবরনকে তফসিল বলে। মৌজা কী ? ক্যাডষ্টাল জরিপের সময় প্রতি থানা এলাকাকে অনোকগুলো এককে বিভক্ত করেপ্রত্যেকটি একক এর ক্রমিক নং দিয়ে চিহ্নিত করে জরিপ করা হয়েছে। থানা এলাকারএরুপ প্রত্যেকটি একককে মৌজা বলে। এক বা একাদিক গ্রাম বা পাড়া নিয়ে একটিমৌজা ঘঠিত হয়। খাজনা কী ? ভূমি ব্যবহারের জন্য প্রজার নিকট থেকে সরকারবার্ষিক ভিত্তিতে যে ভুমি কর আদায় করে তাকে ভুমির খাজনা বলা হয়। ওয়াকফ কী ? ইসলামি বিধান মোতাবেক মুসলিম ভূমি মালিক কর্তৃক ধর্মীয় ও সমাজ কল্যানমুলকপ্রতিষ্ঠানের ব্যায় ভার বহন করার উদ্দেশ্যে কোন সম্পত্তি দান করাকে ওয়াকফবলে। মোতওয়াল্লী কী ? ওয়াকফ সম্পত্তি ব্যবস্থাপনা ও তত্ত্বাবধান যিনি করেনতাকে মোতওয়াল্লী বলে।মোতওয়াল্লী ওয়াকফ প্রশাষকের অনুমতি ব্যতিত ওয়াকফসম্পত্তি হস্তান্তর করতে পারেন না। ওয়রিশ কী ? ওয়ারিশ অর্থ ধর্মীয় বিধানেরআওতায় উত্তরাধিকারী। কোন ব্যক্তি উইল না করে মৃত্যু বরন করলে আইনের বিধানঅনুযায়ী তার স্ত্রী, সন্তান বা নিকট আত্নীয়দের মধ্যে যারা তার রেখে যাওয়াসম্পত্তিতে মালিক হন এমন ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গকে ওয়ারিশ বলা হয়। ফারায়েজকী ? ইসলামি বিধান মোতাবেক মৃত ব্যক্তির সম্পত্তি বন্টন করার নিয়ম ওপ্রক্রিয়াকে ফারায়েজ বলে। খাস জমি কী ? ভূমি মন্ত্রনালয়ের আওতাধিন যে জমিসরকারের পক্ষে কালেক্টর তত্ত্বাবধান করেন এমন জমিকে খাস জমি বলে। কবুলিয়তকী ? সরকার কর্তৃক কৃষককে জমি বন্দোবস্ত দেওয়ার প্রস্তাব প্রজা কর্তৃকগ্রহন করে খাজনা প্রদানের যে অংঙ্গিকার পত্র দেওয়া হয় তাকে কবুলিয়ত বলে।দাগ নং কী ? মৌজায় প্রত্যেক ভূমি মালিকের জমি আলাদাভাবে বা জমির শ্রেনীভিত্তিক প্রত্যেকটি ভূমি খন্ডকে আলাদাভাবে চিহ্নিত করার লক্ষ্যে সিমানাখুটি বা আইল দিয়ে স্বরজমিনে আলাদাভাবে প্রদর্শন করা হয়। মৌজা নক্সায়প্রত্যেকটি ভূমি খন্ডকে ক্রমিক নম্বর দিয়ে জমি চিহ্নিত বা সনাক্ত করারলক্ষ্যে প্রদত্ত্ব নাম্বারকে দাগ নাম্বার বলে। ছুট দাগ কী ? ভূমি জরিপেরপ্রাথমিক পর্যায়ে নক্সা প্রস্তুত বা সংশোধনের সময় নক্সার প্রত্যেকটিভূ-খন্ডের ক্রমিক নাম্বার দেওয়ার সময় যে ক্রমিক নাম্বার ভূলক্রমে বাদ পরেযায় অথবা প্রাথমিক পর্যায়ের পরে দুটি ভূমি খন্ড একত্রিত হওয়ার কারনে যেক্রমিক নাম্বার বাদ দিতে হয় তাকে ছুট দাগ বলা হয়। চান্দিনা ভিটি কী ? হাটবাজারের স্থায়ী বা অস্থায়ী দোকান অংশের অকৃষি প্রজা স্বত্ত্য এলাকাকেচান্দিনা ভিটি বলা হয়। অগ্রক্রয়াধিকার কী ? অগ্রক্রয়াধিকার অর্থ সম্পত্ত্বিক্রয় করার ক্ষেত্রে আইনানুগভাবে অন্যান্য ক্রেতার তুলনায় অগ্রাধিকারপ্রাপ্যতার বিধান। কোন কৃষি জমির মালিক বা অংশিদার কোন আগন্তুকের নিকট তারঅংশ বা জমি বিক্রির মাধ্যমে হস্তান্তর করলে অন্য অংশিদার কর্তৃক দলিলেবর্নিত মূল্য সহ অতিরিক্ত ১০% অর্থ বিক্রি বা অবহিত হওয়ার ৪ মাসের মধ্যেআদালতে জমা দিয়ে আদালতের মাধ্যমে জমি ক্রয় করার আইনানুগ অধিকারকেঅগ্রক্রয়াধিকার বলা হয়। আমিন কী ? ভূমি জরিপের মধ্যমে নক্সা ও খতিয়ানপ্রস্তুত ও ভূমি জরিপ কাজে নিজুক্ত কর্মচারীকে আমিন বলা হত। সিকস্তি কী ? নদী ভাংঙ্গনে জমি পানিতে বিলিন হয়ে যাওয়াকে সিকস্তি বলা হয়। সিকস্তি জমি ৩০বছরের মধ্যে স্বস্থানে পয়স্তি হলে সিকস্তি হওয়ার প্রাককালে যিনি ভূমিমালিক ছিলেন, তিনি বা তাহার উত্তরাধিকারগন উক্ত জমির মালিকানা শর্তসাপেক্ষ্যে প্রাপ্য হবেন। পয়স্তি কী ? নদী গর্ভ থেকে পলি মাটির চর পড়ে জমিরসৃষ্টি হওয়াকে পয়স্তি বলা হয়। নাল জমি কী ? সমতল ২ বা ৩ ফসলি আবাদি জমিকেনাল জমি বলা হয়। দেবোত্তর সম্পত্তি কী ? হিন্দুদের ধর্মীয় অনুষ্ঠানাদিরআয়োজন, ব্যাবস্থাপনা ও সু-সম্পন্ন করার ব্যয় ভার নির্বাহের লক্ষ্যেউৎসর্গকৃত ভূমিকে দেবোত্তর সম্পত্তি সম্পত্তি বলা হয়। দাখিলা কী ? ভূমিমালিকের নিকট হতে ভূমি কর আদায় করে যে নির্দিষ্ট ফরমে (ফরম নং-১০৭৭) ভূমিকরআদায়ের প্রমানপত্র বা রশিদ দেওয়া হয় তাকে দাখিলা বলে। ডি,সি,আর কী ? ভূমিকর ব্যতিত অন্যান্য সরকারি পাওনা আদায় করার পর যে নির্ধারিত ফরমে (ফরমনং-২২২) রশিদ দেওয়া হয় তাকে ডি,সি,আর বলে। দলিল কী ? যে কোন লিখিত বিবরনিযা ভবিষ্যতে আদালতে স্বাক্ষ্য হিসেবে গ্রহনযোগ্য তাকে দলিল বলা হয়। তবেরেজিষ্ট্রেশন আইনের বিধান মোতাবেক জমি ক্রেতা এবং বিক্রেতা সম্পত্তিহস্তান্তর করার জন্য যে চুক্তিপত্র সম্পাদন ও রেজিষ্ট্রি করেন তাকেসাধারনভাবে দলিল বলে। কিস্তোয়ার কী ? ভূমি জরিপকালে চতুর্ভূজ ও মোরব্বাপ্রস্তুত করারপর সিকমি লাইনে চেইন চালিয়ে সঠিকভাবে খন্ড খন্ড ভূমির বাস্তবভৌগলিক চিত্র অঙ্কনের মাধ্যমে নক্সা প্রস্তুতের পদ্ধতিকে কিস্তোয়ার বলে।খানাপুরি কী ? জরিপের সময় মৌজা নক্সা প্রস্তুত করার পর খতিয়ান প্রস্তুতকালেখতিয়ান ফর্মের প্রত্যেকটি কলাম জরিপ কর্মচারী কর্তৃক পূরণ করারপ্রক্রিয়াকে খানাপুরি বলে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

অবস্থান:

নিজপাড়া ইউনিয়ন ভূমি অফিসের নিজস্ব কোন ভবন নেই।ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্রে তিন কক্ষ বিশিষ্ট এক পাকা ভবনে এ ইউনিয়ন ভূমি অফিসের দৈনন্দিন কাযর্ক্রম পরিচালিত হচ্ছে।অফিসের অধিন মোট মৌজার সংখ্যা=১৪টি

হাজিরা বহি:

হাজিরা বহি পরিক্ষান্তে দেখা যায় যে, এটি একটি নিধার্রিত ফরমের রেজিষ্টার এর প্ৃষ্ঠা সংখ্যা প্রথ্যয়ন করা আছে।ইউনিয়ন ভূমি অফিসে কর্মরত কর্মকর্তা/কর্মচারীগন এতে নিয়মিত স্বাক্ষর করে থাকেন।হাজিরা বহির নৈমিত্তিক ছুটি কলাম যথাযথ ভাবে পুরন করা হয়নি।

মন্তব্য:নৈমিত্তিক ছুটির কলাম পুরন পুবর্কহাজিরা বহি যথযথ ভাবে সংরক্ষন করা করার জন্য ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তাকে বলা হলো।

জনবল:নিজপাড়া ইউনিয়ন ভূমি অফিসের জনবল নিম্নরুপ:

ক্র:নং

নাম ও পদবী

মঞ্জুরীকৃত পদ

কর্মরত পদ

শুন্যপদ

মো:আ:সালাম ই:ভূ:স:ক

-

ই:ভূ:স:ক

-

মো:আইয়ুব আলী

এমএল এসএস

 

                                                                                                                              

রেজিষ্টার ২৬ পরিদশর্ন:

পরিদশর্নন রেজিষ্টার পরীক্ষান্তে দেখা যায় এটি একটি অনির্ধারিত রেজিষ্টার।এর পৃষ্ঠা সংখ্যা প্রত্যয়ন করা আছে ।রেজিষ্টার দৃশ্যে দেখা যায় সর্ব শেষ ১২-০৩-২০১২ ইং তারিখে উপজেলা ভূমি অফিস,বীরগঞ্জ,দিনাজপুর এর কানুনগো জনাব মো:মোস্তাফিজুর রহমান এই ইউনিয়ন ভূমি অফিসটি পরিদশর্ন করেন। পরিদশর্ন রেজিষ্টার পরীক্ষান্তে আরও দেখা যায় উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদয়ের পরিদশর্ন মন্তব্যের আলোক গৃহীত কাযর্ক্রম পরিদশর্ন রেজিষ্টারে লিপিবদ্ধ করা হয়নি।

মন্তব্য:পরিদশর্ন রেজিষ্টারটি যথাযথ ভাবে সংরক্ষন সহ উদ্Lর্তন কর্মকর্তাদের পরদিশর্ন মন্তব্যের আলোকে কাযর্ক্রম্রহন পুবর্ক গ্রহীত কাযর্ক্রম পরিদশর্ন রেজিষ্টারে লিপিবদ্ধ করার জন্য ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কমকর্তাকে নিদের্শ দেওয়া হল:

 

রেজিষ্টার:

নিজপাড়া ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ১৪ টি মৌজার জন্য মোট রেজিষ্টার Ìএর সংখ্যা ১৪টি।তন্মধ্যে ৬টি রেজিষ্টার ভাল এবং ৮টি রেজিষ্টার ছেড়া ও জড়া জীর্ন অবস্থায় দেখা গেল।

রেজিষ্টার:

রেজিষ্টার গুলো পরীক্ষান্তে দেখা যায় ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ১৪টি মৌজার জন্য মোট রেজিষ্টার

ÌÌএর সংখ্যা ৭৪টি। সব গুলো রেজিষ্টার মোচটামুটি ভাল অবস্থায় দেখা গেল।

মন্তব্য:রেজিষ্টার গুলো যত্ন সহকারে ব্যবহার করার জন্য ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তাকে নিদের্শ দেওয়া হল। 

রেজিষ্টার iv(ক্যাশ বহি)

ক্যাশ বহি পরীক্ষান্তে দেখা যায় এটি একটি নির্ধারিত রেজিষ্টার।এর পৃষ্ঠা সংখ্যা প্রত্যয়ন করা হয়েছে।এটি ৩১-০৭-২০১২ ইং তারিখ পযর্ন্ত লেখা দেখা গেল ক্যাশ বহির দৃষ্ঠে আরও দখো যায় ১৯-০৭-২০১২ হতে ২৪-০৭-২০১২ ইং তারিখ পযর্ন্ত ভূমি উন্নয়ন বাবদ আদায়=৩৫০১২/=টাকার মধ্যে ২৫-০৭-২০১২ ইং তাখে ১নং চালান মূলে ৩৪৩১২/- টাকা এবং  ২% হিসাবে ৭০০/- টাকা সোনালী ব্যাংক চলতি হিসাব নং ০০১০২২৫২২ এ জমা দেওয়া হয়েছে। চালানের কপি যাচাই করে সঠিক পাওয়া গেল।২৫-০৭-২০১২ ইং তারিখের আদায় ২৫৭২/৫০ টাকা ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তার হস্তমজুদ দেখা গেল।মন্তব্য:ক্যাশ বহি যথাযথ ভাবে সংরক্ষন করার জন্য এবং প্রতিদিনের আদায় কৃত অর্থ পরবর্তী কর্ম দিবসে সরকারী খাতে জমা দেওয়ার জন্য ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তাকে নিদের্শ দেওয়া হল।

 

 

 

১০

রেজিষ্টার vi(সায়রাত):

সায়রাত রেজষ্টিার পরীক্ষান্তে দেখা যায় যে,এটি নির্ধারিত ফরমের অতি পুরাতন একটি রোজিষ্টার।এর প্রষ্ঠা সংখ্যা প্রত্যায়ন করা হয়েছে। রেজিষ্টার দৃষ্টে দেখা যায় যে,ভূমি অফিসের অধীন মোট সায়রাত মহালে সংখ্যা ১১টি। তন্মধ্যে পুকুর ৮টি,এবং হাট বাজার ৩টি।হাট বাজার ৩টি ১৪১৯ বাংলা সনের ইজারা দেওয়া হয়েছে।তবে ইজারা লব্ধ আয়ের ৫% ও ২০% আদায়ের তথ্য সায়রাত রেজিষ্টারে লিপিবদ্ধ: করা হয়নি।পুকুর পুকুর গুলোর হাল সনের ইজারার কোন তথ্য সায়রাত রেজিষ্টারে লিপি বদ্ধ দেখা গেল না।

মন্তব্য:

ক)রেজিষ্টারটি নতুন ভাবে পুনর্গঠনের জস্য ইউনিয়ন ভুমি সহকারী কর্মকর্তাকে নিদের্শ দেওয়া হলো।

খ)হাচ বাজারের ইজারার আয়ের ৫% ও ২০% আদায়ের তথ্য সায়রাত রেজিষ্টারে লিপিবদ্ধ করা সহ পুকুর গুলোর হাল সনের ইজারা তথ্য সংগ্রহ করত:সায়রাত রেজিষ্টারে লিপিবদ্ধ করার জন্য ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তাকে নিদের্শ দেওয়া হলো।সহকারী কমিশনার ভূমি বিষয়টি নিশ্চিত করবেন।

 

 

 

১১

রেজিষ্টার-vii(খাস জমি):

রেজিষ্টারটি পরীক্ষান্তে দেখা যায় এটি একটি নির্ধারিত রেজিষ্টার।এর পৃষ্ঠা সংখ্যা প্রত্যয়ন করা হয়নি।দেখা যায় ইউনিয়ন ভূমি অফিসে খন্ডের মোট জমি খাস জমির পরিমান ১২৬৯.২২ একর।তন্মধ্যে ১ম ৪০৪.৭৯ একর এবং ২য় ও তয় খন্ডে ৮৬৪.৯৪ একর জমি রয়েছে। বন্দোবস্তযোগ্য জমির মধ্যে ইতিমধ্যে ৭৬৪.৯৪ একর জমি বন্দোবস্ত দেওয়া হয়েছে।বর্তমানে ৯৯.৪৯ একর জমি বন্দোবস্তের অপেক্ষায় রয়েছে।

মন্তব্য:

ক)প্রত্যয়ন সহ রেজিষ্টারটি য়থাযথ ভাবে সংরক্ষন করার জন্য এবং এটি নিয়মিত উপজেলা ভূমি অফিসে রক্ষিত খাস জমির রেজিষ্টারের সাথে মিলিয়ে নেওয়ার জন্য ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তাকে নিদের্শ দেওয়া হল।

খ)বন্দোবস্তযোগ্য অবশিষ্ট কাস জমি সরকারী নীতিমালা অনুযায়ী প্রকৃত ভূমিহীনদের মাঝে বন্দোবস্ত দেওয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্র সহকারী কমিশনার (ভূমি)কে অনুরোধ করা হল।

 

 

 

 

 

১২

নাম জারী:

নাম জারী ১ম খন্ড:

নাম জারী ১ম খন্ডের রেজিষ্টারটি পরীক্ষান্তে দেখা যায় এটি একটি নির্ধারিত রেজিষ্টার।এর পৃষ্ঠা সংখ্যা প্রত্যয়ন করা হয়েছে।রেজিষ্টার দৃষ্টে দেখা যায় চলতি ২০১২-২০১৩ অর্থ বছরে এ ইউনিয়ন ভূমি অফিসে ৩টি মামলা দায়ের হয়েছে।সবগুলো মামলাই পেন্ডিং রয়েছে।

২য় খন্ড:

নাম জারী ২য় খন্ডের রেজিষ্টারটি পরীক্ষান্তে দেখা যায় এটি একটি নির্ধারিত রেজিষ্টার।এর পৃষ্ঠা সংখ্যা প্রত্যয়ন করা আছে।রেজিষ্ঠার দৃষ্টে দেখা যায় চলতি ২০১২-২০১৩ অর্থ বছরে এ ইউনিয়ন ভূমি অফিসে ৭টি এলটি নোটিশ পাওয়া গেছে।সবগুলো এলটি নোটিশই তদন্ত অন্তে উপজেলা ভূমি অফিসে প্রতিবেদন প্রেরন করা হয়েছে।

মন্তব্য:

ক)রেজিষ্টার দুইটি যথাযথ ভাবে সংরক্ষন করার জন্য ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তাকে নিদের্শ দেওয়া হলো।

খ)বকেয়া ভূমি উন্নয়ন কর আদায় পূবর্ক নামজারী মামলার প্রস্তাব প্রেরনের জন্য ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তাকে নিদের্শ দেওয়া হল।

গ)নামজারী মামলা নিস্পত্তির পর নতুন হোল্ডিং open কারীর স্বাক্ষর সহ হোল্ডিংটি কর্মকর্তা দ্বারা সত্যায়ন করে নেওযার জন্য ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তাকে নিদের্শ দেওয়া হল।সহকারী কমিশনার (ভূমি),কানুনগো বিষয়টি নিশ্চিত করবেন।

 

 

 

১৩

ভূমি উন্নয়ন করের দাবী ও আদায়:

ভূমি উন্নয়ন করের দাবী ও আদায় পযার্লোচনার পর দেখা যায় যে গত ২০১১-২০১২ অর্থ বছরে এ ইউনিয়ন ভূমি অফিসে সাধারন খাতে ভূমি উন্নয়ন কর দাবী ছিল ৪৮১৭৭৮/-টাকা। তৎমধ্যে আদায় হয়েছে ৭১৭৮৫০/-টাকা। আদায়ের হার ১৪৯%। সংস্থার ভূমি উন্নয়ন করের দাবী ছিল ২১২৭৫/-টাকা তৎমধ্যে আদায় হয়েছে২৩৭১৯/-টাকা।চলতি ২০১২-২০১৩ অর্থ বছরের ভূমি উন্নয়ন করের দাবী নির্ধারনের  কাজ চলমান রয়েছে তবে এ পযর্ন্ত আদায় ৩৭৫৮৪.৫০/-টাকা।

মন্তব্য:

চলতি অর্থ বছরের ভূমি উন্নয়ন করের দাবী নির্ধারনের কাজ আগামী আগষ্ট/২০১২ মাসের মধ্যে সম্পন্ন করার জন্য ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তাকে নিদের্শ দেওয়া হলো।

 

 

সংযুক্তি

Mutation Form.pdf Mutation Form.pdf
Registration_Fertilizer_Dealership.pdf Registration_Fertilizer_Dealership.pdf


Share with :

Facebook Twitter